ইতিহাসের বিখ্যাত ১০ জন প্লেবয়। 10 most popular playboy in the history.

পৃথিবীর সকল মানুষ জ্ঞান, বিজ্ঞান অথবা রাজ্যজয়ে বিখ্যাত হন না। কিছু মানুষ আছে যারা অনেক অদ্ভুত কারনেও বিখ্যাত হয়। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ১০ জন এমন ঐতিহাসিক ভাবে বিখ্যাত প্রেমিক বা প্লেবয়ের নাম বলব যারা নিজেদের প্রেম করার বিশেষ গুণের কারণে খ্যাতি লাভ করেছেন। তাদের এই খ্যাতি কি সুখ্যাতি ছিল নাকি কুখ্যাতি ছিল তা আপ্নারাই বিচার করে ঠিক করুন।

14th Louis
১৪ তম লুই By Hyacinthe Rigaudwartburg.edu[dead link], Public Domain, Link
১। ১৪ তম লুইঃ ফ্রান্সের রাজা ১৪ তম লুইয়ের কয়েক ডজন নারী সেবিকা ছিল যারা সবসময় তার পাশেই থাকতেন। তিনি যেখানে যেতেন সেখানেই এই সুন্দরী নারীর দল তার সাথেই থাকতেন। লুই মাত্র ৪ বছর বয়সে ফ্রান্সের সিংহাসনে বসেন এবং কিছুকাল পরে ক্ষমতাচ্যুত  হন এবং ৭২ বছর বয়সে আবার ক্ষমতায় আসীন হন।

২। পিটার দ্যা গ্রেটঃ রাশিয়ান সম্রাট পিটার দ্যা গ্রেট তার ভালোবাসার বীজ তার দেশ থেকে হাজার হাজার মেইল দূরে ইউরোপেও ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। তার প্রাসাদের ভিতরে যে হেরেম ছিল সেখানে শুধু উচ্চবংশীয় রাশিয়ান রমণীরা থাকতো। এছাড়া বিভিন্ন জায়গায় অনেক ইউরোপিয়ান মেয়েও তার হেরেমের বাসিন্দা ছিল।

৩। ক্যাসানোভাঃ ইটালিয়ান লেখক একজন আইকনিক প্রেমিক ছিলেন। বলা হয় তার প্রেমিকার সংখ্যা এক হাজারেরও বেশী ছিল। ক্যাসানোভা তার খালার কাছে বড় হন এবং লেখাপড়া শিখেন। তার এই কাব্যিক গুনই তাকে তার প্রেমিকাদের হৃদয় জয় করতে সহায়তা করেছে।

নেপোলিয়ান বোনাপার্ট By Henri Félix Emmanuel Philippoteaux – Transferred from de.wikipedia to Commons by Stefan Bernd.Alt source: [1], Public Domain, Link
৪। নেপোলিয়ান বোনাপার্টঃ নেপোলিয়ান বোনাপার্ট যে একজন সফল যোদ্ধা ও সেনাপতি ছিলেন তা আমরা সবাই জানি। কিন্তু তিনি নারীর মন জয় করতেও সমান এক্সপার্ট ছিলেন। যৌবন থেকেই তার অসংখ্য প্রেমিকা ছিল। তিনি তার প্রেমিকাদের দামী উপহার আর রোম্যান্টিক চিঠি দেয়ার জন্যেও বিখ্যাত ছিলেন।

৫। মার্কাস ডি সাডেঃ ফরাসী দার্শনিক ও লেখক মার্কাস একজন অসুস্থ স্যাডিস্ট ছিলেন। অসংখ্য মেয়ে তার এইরকম অদ্ভুত আচরনের শিকার হন। মাত্র ২৩ বছর বয়সে তিই ফ্রান্সের প্রায় সব ব্রোথেল ঘুরে ফেলেন। এবং একসময় তিনি প্যারিসের সবচেয়ে প্রত্যাশিত পুরুষ হিসেবে নিজেকে প্রকাশ করেন।

৬। বালজাকঃ ইনিও একজন ফরাসী লেখক। তার অসংখ্য প্রেমিকা ছিল এবং তার বেশিরভাগই ছিলেন মধ্য বয়সী নারী। কিন্তু তিনি তার সম্পর্কের কথা গোপন রাখতেন না তার লেখনীর মাধ্যমে প্রকাশ করে দিতেন। অনেক নারী তাকে অসংখ্য চিঠি লিখেছেন।

৭। পাবলো পিকাসোঃ পিকাসো শুধুমাত্র একজন ট্যালেন্টেড আর্টিস্ট ছিলেন না। তিনি একজন ট্যালেন্টেড প্রেমিকও ছিলেন। তার জীবনীতে তিনি তার প্রেমিকাদের কথা উল্লেখ করে গেছেন।

৮। ক্লার্ক গ্যাবলঃ ক্লার্ক ১৯৩০-৪০ সালের আমেরিকার একজন বিখ্যাত অভিনেতা ছিলেন। তিনি মোট পাঁচবার বিয়ে করেছেন। তার স্ত্রীদের মধ্যে একজন ছিলেন তার থেকে ১৪ বছরের বড় এবং আরেকজন ছিলেন ১৭ বছর বড়। তার অসংখ্য প্রেমিকা ছিল এবং তার এইসব আচরন তাকে আমেরিকার সেক্স সিম্বলে পরিনত করে।

sultan suleiman
সুলতান সুলেমান By Tiziano Vecellio – http://www.baluch-rugs.com/images/Portrait_Suleiman_Magnificent.jpg, Public Domain, Link

৯। সুলতান সুলেমানঃ উসমান সম্রাজ্যের সুলতান সুলেমানের বিশাল বড় এক হারেম ছিল। সেখানে শত শত নারী ছিল যাদের তিনি তার জয় করা রাজ্য থেকে ধরে এনেছিলেন। এইসব নারীদের সবারই স্বপ্ন থাকতো সুলতানের সাথে একটু বেশি সময় কাটানো। সুলতানের রানী হওয়ার এবং সুলতানের সন্তান পেটে নেয়ার।

১০। ডন মিগুয়েল ডি মানারাঃ ডন মিগুয়েল একজন ফিকশনাল ক্যারেক্টার। কিন্তু তাকে সেক্স সিম্বল হিসেবে মানা হয়। মিগুয়েল ৬৪০ জন ইটালিয়ান নারী, ১০০ জন ফরাসী নারী, ২৩১ জন জার্মান নারী, ৯১জন তুর্কি নারী এবং ১০০৩ জন স্প্যানিশ নারীর সাথে প্রেমে লিপ্ত হন।

ইতিহাস অনেক মজার বিষয় যা থেকে আসলে আমরা আমাদের ভিতরে থাকা মানুষদের সম্পর্কে ধারনা পাই। আমরা বুঝতে পারি আমরা কোথা থেকে এসেছি আমাদের অরিজিন কি। আবার শিক্ষাও নেই। আর্টিকেলটি ভালো লেগে থাকলে শেয়ার করবেন এবং আগামীর বাংলার ফেসবুকের পেজে লাইক দিবেন।

 

ধন্যবাদ সবাইকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *