কালো জামের যত উপকারিতা। Health benefits of black berries.

health benefits of black berries.

দেশি ফলের মধ্যে কালোজাম সকলেরই প্রিয় এবং স্বাদে গন্ধে সব ফল থেকে আলাদা একটি ফল। এই রসাল টক-মিষ্টির মিশেলে গড়া ফলটি গ্রীষ্মের গরমে সকলেরই প্রাণ জুড়ায়। সকল দেশি মৌসুমি ফলের মতই জামেরও রয়েছে অসংখ্য পুষ্টিগুণ। এই আর্টিকেলে আমরা কালোজামের সেসব উপকারিতার কথা আলোচনা করব।

১। প্রাকৃতিক কীটনাশকঃ জাম পাতা শস্যক্ষেত্রে কীটনাশক হিসেবে ব্যবহার হয়ে থাকে। প্রাকৃতিক কীটনাশক হিসেবে জাম পাতা পিষে ১:৪ অনুপাতে দ্রবণ তৈরি করে তা পাতা ও ফলের পরিশোধনে ব্যবহার করা যায়।

২। রক্ত পরিষ্কার করেঃ জামে প্রচুর পরিমাণ আয়রন আছে এবং এটি রক্তের হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়ায়। এটি রক্ত পরিষ্কার করে এবং রক্তস্বল্পতার সমাধানে সাহায্য করে।

৩। মানুষকে উদ্দীপ্ত ও সতেজ রাখেঃ জামে গ্লুকোজ, ফ্রুক্টোজ এবং ডেক্সটোজ রয়েছে যা আমাদের ক্লান্তি দূর করে কাজ করার শক্তি জোগায়। এছাড়া বয়সজনিত স্মৃতিনাশ থেকে মানুষকে দূরে রাখে।

৪। ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়ঃ বহুকাল থেকেই ডায়াবেটিসের চিকিৎসায় জামের ব্যবহার হয়ে আসছে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে জামের বীচি রক্তের সুগার লেভেল ৩০% পর্যন্ত কমায় এবং জাম নিয়মিত সেবন ডায়াবেটিস থেকে মানুষকে দূরে রাখে।

৫। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ জামে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ও মিনারেল আছে। এছাড়া জাম ভিটামিন সি এর একটি উল্লেখযোগ্য উৎস। ভিটামিন সি আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে আমাদের ইনফেকশন ও বিভিন্ন অসুখ বিসুখ থেকে দূরে রাখে।

৬। হার্টের অসুখ দূর করেঃ জামে এলজিক এসিড, এন্থোসায়ানিন এবং এন্থোসায়ানিডিন্স আছে যা এন্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং শরীর থেকে বাজে কোলেস্টেরল দূর করতে সাহায্য করে। এছাড়া জামে প্রচুর পরিমাণ পটাশিয়াম আছে যা হাইপারটেনশন দূর করে হৃদযন্ত্রের উপর থেকে চাপ কমায়।

৭। হজমে সাহায্য করেঃ জামের পাতা ডায়রিয়া ও আলসার চিকিৎসায় ভেষজ বিজ্ঞানে বহুকাল আগে থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে। জাম হজমে সাহায্য করে এছাড়া মুখের দুর্গন্ধ দূর করতেও সাহায্য করে।

৮। ক্যান্সার হতে দূরে রাখেঃ জামে প্রচুর এন্টি অক্সিডেন্ট আছে যা ক্যান্সার সেল গঠনে বাঁধা দেয়। এছাড়া জামের নির্যাস আমাদের শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী ফ্রি র‍্যাডিক্যাল সৃষ্টিতে বাঁধা দেয় এবং তা দূর করতে সাহায্য করে।

জামের আরো অনেক উপকারিতা রয়েছে। এই সস্তা দেশি মৌসুমি ফলকে অবহেলা করবেন না। খালি মুখে অথবা মরিচ-লবণ দিয়ে যেভাবেই মেখে খান না কেন এটি স্বাদের সাথে সাথে অনেক রোগ থেকে আপনাকে উপকারও দিবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *